করোনা উপসর্গে মৃত্যুঃ খাটিয়া না দেওয়ায় অ্যাম্বুলেন্সেই জানাযা

Corona

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া গোলাম সরোয়াকে খাটিয়া না দেওয়ায় অ্যাম্বুলেন্সে রেখেই পড়ানো হলো জানাযা। শনিবার (০৪ জুলাই) রাতে ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার মধ্যপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মৃত ব্যক্তি উপজেলার মধ্যপাড়া গ্রামের রফি উদ্দিন মোল্লার ছেলে।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক আব্দুল হামিদ খান জানান, গোলাম সরোয়ার বাংলাদেশ রেলওয়েতে চট্টগ্রামে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার পদে চাকরি করতেন। সেখানে তার করোনা উপসর্গ দেখা দিলে গত ২৯ জুন তিনি শৈলকুপার নিজ বাড়িতে আসেন। নমুনা পরীক্ষায় তার করোনা পজিটিভ আসে। চিকিৎসার জন্য ০১ জুলাই কুষ্টিয়া সরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন। শারিরীক অবস্থার অবনতি হলে ০২ জুলাই তিনি রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। সেখানেই চিকিৎসারত অবস্থায় ০৪ জুলাই শনিবার দুপুরে তিনি মারা যান।

পরে ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথের নির্দেশনায় ঝিনাইদহ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের শৈলকুপা উপজেলার ফিল্ড সুপারভাইজার মো. আব্দুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে দাফন গঠিত কমিটির সদস্যরা রাত সাড়ে ১২টার সময় জানাযা শেষে স্থানীয় গোরস্থানে দাফন সম্পন্ন করেন।

তিনি আরও জানান, করোনা আক্রান্ত মৃত ব্যক্তির জানাযা করার জন্য স্থানীয়রা খাটিয়া দেয়নি এবং জানাযায় কেউ অংশ নেয়নি। পরে অ্যাম্বুলেন্সের মধ্যেই মৃত ব্যক্তির জানাযা পড়ানো হয়।

এদিকে, ঝিনাইদহ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের লাশ দাফন কমিটির মাধ্যমে এ পর্যন্ত ১৬ জন করোনা উপসর্গ ও করোনা আক্রান্ত মৃত ব্যক্তির দাফন করা হলো।