কেন্দুয়ায় গণধর্ষণের শিকার ভিকটিম উদ্ধার, তিন ধর্ষক আটক

Madaripur

র‌্যাব-৮ মাদারীপুর ক্যাম্পের একটি আভিযানিক দল শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মাদারীপুর সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের কলাগাছিয়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে গণধর্ষণের শিকার এক গৃহবধূকে (২৮) উদ্ধার করা হয়। এ সময় তিনজন ধর্ষককে আটক করা হয়।

র‌্যাব-৮, সিপিসি-৩ মাদারীপুর ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক (সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার) মো. ইফতেখারুজ্জামান শুক্রবার রাতে এক প্রেস রিলিজের মাধ্যমে জানান, গত ১৩ অক্টোবর ধর্ষণকারী ফারুক হোসেন বেপারীর নেতৃত্বে লিটন হাওলাদার ও তৈয়ব আলী হাওলাদার মাদারীপুর শহরের পানিছত্র এলাকার জুলহাস চৌকিদারের বাড়ির ভাড়াটিয়া এক গৃহবধূকে অপহরণ করে সদর উপজেলার কলাগাছিয়া গ্রামে এক ভাড়া বাসায় নিয়ে ভিকটিমকে আটকে রাখে। তিনজন মিলে গত ১৩ অক্টোবর থেকে ১৬ অক্টোবর পর্যন্ত ওই ঘরের ভেতর আটকে রেখে ওই গৃহবধূর ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর করে পালাক্রমে একাধিকবার ধর্ষণ করে।

ভিকটিম কৌঁশলে ঘটনার বিষয়টি শুক্রবার সকালে র‌্যাব-৮, মাদারীপুর ক্যাম্পকে জানায়। পরে র‌্যাব-৮, মাদারীপুর ক্যাম্পের একটি বিশেষ আভিযানিক দল ঘটনাস্থলে গিয়ে ভাড়া বাসা হতে অপহৃত ভিকটিমকে উদ্ধার করে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত ফারুককে ঘটনাস্থল থেকে আটক করে। পরবর্তীতে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে লিটন ও তৈয়বকেও মাদারীপুর শহরের পানিছত্র এলাকা থেকে আটক করা হয়।

আটকরা হলেন, মাদারীপুর শহরের পানিছত্র এলাকার আ. লতিফ বেপারীর ছেলে ফারুক হোসেন বেপারী (৪৬), মহিষেরচর গ্রামের আ. মান্নান হাওলাদারের ছেলে লিটন হাওলাদার (৪৯), মহিষেরচর গ্রামের বেলুন হাওলাদারের ছেলে তৈয়ব আলী হাওলাদার (৪৮)।

ভিকটিম এবং আটক আসামিদের মাদারীপুর সদর মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। এই ঘটনায় ভিকটিম নিজেই বাদী হয়ে মাদারীপুর সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

র‌্যাব-৮, সিপিসি-৩ মাদারীপুর ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক (সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার) মো. ইফতেখারুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।