বাংলাদেশকে আগামী ‘মে’ মাসে ৬ কোটি ৮০ লাখ ডোজ টিকা দেবে কোভ্যাক্স

covax vaccine

বিশ্বজুড়ে তাণ্ডব চালাচ্ছে মহামারি করোনাভাইরাস বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে গোটা বিশ্ব। ন্যায্যতার ভিত্তিতে সুষ্ঠুভাবে টিকা সরবরাহের প্রতিশ্রুতি নিয়ে গড়া জোট কোভ্যাক্স থেকে করোনা সংকট মোকাবিলায় মে মাসেই ৬ কোটি ৮০ লাখ টিকা পাবে বাংলাদেশ। এ তথ্য জানিয়েছে বিশ্বব্যাংক।

আজ সোমবার (১২ এপ্রিল) প্রকাশিত ‘বাংলাদেশ আপডেট’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানানো হয়।

একই সঙ্গে চলতি অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি (মোট দেশ উৎপাদন) প্রবৃদ্ধি ২ দশমিক ৬ শতাংশ থেকে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ হতে পারে বলে জানানো হয়। তবে চলমান টিকা প্রয়োগ কার্যক্রম যদি অব্যাহত থাকে, কঠোর লকডাউন কার্যকর হয় এবং দ্রুত বিশ্ব অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ায় তাহলেই এই প্রবৃদ্ধি অর্জন সম্ভব হবে।

প্রতিবেদন প্রকাশ উপলক্ষে ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে বক্তব্য রাখেন বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি মিয়াং টেম্বন। প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন সংস্থাটির সিনিয়র ইকোনমিস্ট বানার্ড হ্যাভেন।

মার্সি টেম্বন বলেন, টিকা প্রাপ্তি নিয়ে বৈশ্বিকভাবে অনিশ্চয়তা রয়েছে। তবে বাংলাদেশ কোভ্যাক্স থেকে খুব শিগগিরই টিকা পাবে। বাংলাদেশ সরকারের টিকা কিনতে অর্থের কোনো সমস্যা নেই। বিশ্বব্যাংকও ৫০ কোটি ডলার দিতে যাচ্ছে যা দিয়ে দেশের তিন ভাগ মানুষের জন্য টিকা কেনা যাবে। এছাড়া বৈশ্বিক উদ্যোগ কোভ্যাক্স’র সঙ্গে বিশ্বব্যাংকও রয়েছে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, বাংলাদেশের অর্থনীতি রপ্তানি, রেমিট্যান্স প্রবাহ ও চলমান টিকাদান কর্মসূচির কারণেই হচ্ছে। কোভিড-১৯ এর কারণে তৈরি অনিশ্চয়তা সত্ত্বেও বাংলাদেশের অর্থনীতির গতি ভালো।

বার্নার্ড হ্যাভেন বলেন, করোনার কারণে বৈশ্বিক মন্দা তৈরি করেছে। অনেক পরিবার মানবেতর জীবনযাপন করছে। পরিবারগুলোকে সুরক্ষা দেওয়া জরুরি হয়ে পড়েছে। একই সঙ্গে কাঠামোগত সংস্কার জরুরি। যাতে চলমান সংকট দ্রুত কাটিয়ে উঠতে পারি।