জেনে নিন যে লক্ষণগুলো দেখে সচেতন হলে থামানো যাবে ক্যান্সার

Cancer

ক্যানসার এমন এক অসুখ, যা কোন মানুষকেই রেহাই দেয় না এবং রোগীর মনে তৈরী করে এক বিরাট আতঙ্ক। তবে যদি শুরুতেই ধরা পড়ে তবে ক্যান্সার থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। এজন্য সবার আগে দরকার রোগের প্রাথমিক উপসর্গ সম্পর্কে সচেতন হওয়া। এছাড়া চিকিৎসার পাশাপাশি মনের জোর একটি বড় হাতিয়ার বলছেন চিকিৎসকরা।

প্রবীণ মানুষের মধ্যে ক্যানসারের ঝুঁকি তুলনামূলক ভাবে বেশি। বয়স্কদের মধ্যে প্রস্টেট ক্যানসার, স্তনের ক্যানসার, ফুসফুসের ক্যানসার ও পেটের ক্যানসার বেশি দেখা যায়। ৬৫ বছরের ঊর্ধ্বে ক্যানসারের ঝুঁকি অনেকটা বেড়ে যায়। কম বয়সীদের তুলনায় তা প্রায় ১১ গুণ বেশি। তবে ক্যানসারের প্রাথমিক উপসর্গ সম্পর্কে ওয়াকিবহাল থাকলে, দ্রুত রোগ নির্ণয় করা সম্ভব। সব উপসর্গ দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

ক্যান্সারের কয়েকটি লক্ষণ সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক:

১.দুই সপ্তাহের বেশি শুকনো কাশি ফুসফুসের ক্যানসারের উপসর্গ হতে পারে।

২. স্তনে কোনও লাম্প বা ব্যথাহীন ফোলা অংশ স্তন ক্যানসারের লক্ষণ। বংশে এমন কারও হয়ে থাকলে ৩০ বছরের ঊর্ধ্বে নিয়মিত পরীক্ষা করা উচিত।

৩ খাবার গিলতে অসুবিধে হলে, তা যদি ২ সপ্তাহের বেশি স্থায়ী হয়, চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। এটা অনেক সময় গলায় ক্যানসারের উপসর্গ হতে পারে।

৪. মেনোপজের পর পেটে ব্যথা ক্যানসারের লক্ষণ হতে পারে।

৫. লাগাতার পেটে অস্বস্তি ও গ্যাস হলে নিজে নিজে ওষুধ খাবেন না। ওভারির ক্যানসারের কারণে এই উপসর্গ দেখা দিতে পারে।

৬. ডায়েটিং বা বড় কোনও অসুখ ছাড়া ওজন কমতে শুরু করা ক্যানসারের অন্যতম লক্ষণ।

৭. মাড়ি, প্রস্রাব বা মল থেকে রক্তপাত হলে, এবং তার সঙ্গে জ্বর থাকলে তা ক্যানসারের লক্ষণ।

৮. একটানা পেটের গণ্ডগোল বা কোষ্ঠকাঠিন্য অন্ত্র, প্রস্টেট বা রেক্টাল ক্যানসারের উপসর্গ হতে পারে।

৯. ঘন ঘন জ্বর আসলেও ক্যানসারের কথা ভাবতে হবে।

১০.আঁচিল বা তিলের রঙও আকার বদলে গেলেও চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

১১.লিউকিমিয়ার উপসর্গ হল ভয়ানক ক্লান্তি।

এই সব উপসর্গ দেখলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। প্রাথমিক পর্যায়ে রোগ ধরা পড়লে সঠিক চিকিৎসার সাহায্যে রোগীকে ভাল রাখা যায়।