শিক্ষার্থীদের স্মরণশক্তি বাড়াতে ইঞ্জেকশন, গ্রেফতার তরুণ শিক্ষক

arrest

শিক্ষার্থীদের পড়ানোর পাশাপাশি স্মরণশক্তিরও দেখভাল করতেন শিক্ষক। যা পড়াচ্ছেন, তা যাতে বৃথা না যায়, তার ব্যবস্থা করতেন নিজে হাতে। শিক্ষার্থীদের স্মরণশক্তি বাড়াতে তাদের স্যালাইনের ইঞ্জেকশন দিতেন ওই শিক্ষক।

ব্যাপারটা ইউটিউবের একটি ভিডিও দেখে শিখেছিলেন তিনি। তারপর তা প্রয়োগ করতে শুরু করেন নিজের ছাত্র-ছাত্রীদের উপরই। দিল্লির ওই শিক্ষককে রবিবার গ্রেফাতার করেছে দিল্লি পুলিশ।

গ্রেফতার হওয়া যুবকের বয়স ২০। তিনি নিজে স্নাতক স্তরের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। পূর্ব দিল্লির মান্ডওয়ালিতে ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের পড়াতেন বিনামূল্যে। তবে পড়ানোর ফাঁকে ছাত্র-ছাত্রীদের গিনিপিগ বানিয়ে যে এমন পরীক্ষামূলক ‘গবেষণা’ও চালাতেন, তা সামনে এল এক ছাত্রের ইঞ্জেকশন সমেত ধরা পড়ার পর।

পুলিশ জানিয়েছে, সন্দীপ নামে ওই শিক্ষকের এক ছাত্রকে বাড়িতে ইঞ্জেকশন নিতে দেখেন তার বাবা-মা। এর পরেই পুলিশকে তারা জানান ঘটনাটি। এরপরই সন্দীপকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

পূর্ব দিল্লির ডিএসপি দীপক যাদব জানিয়েছেন, ‘ছাত্রদের স্মরণশক্তি বাড়াতে তাদের উপর নরমাল স্যালাইন সলিউশনের ইঞ্জেকশন প্রয়োগ করত সন্দীপ। তার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৩৬ ধারায় (প্রাণ বিপন্ন করা) মামলা দায়ের হয়েছে।