মানুষকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করা যাবে না: আইজিপি

Benazir Ahmed

করোনা প্রাদুর্ভাবের সময় মানুষের সঙ্গে কেমন আচরণ করতে হবে সেটির দিক নির্দেশনায় আজ শনিবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পুলিশের সব রেঞ্জ, মহানগর ও বিশেষায়িত ইউনিটের কর্মকর্তাদের উদ্দেশে পুলিশ মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘মানুষকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করা যাবে না। মানুষের সঙ্গে মানবিক আচরণ করতে হবে।’

বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘এ সময় জনগণের পাশে থাকতে হবে। মানুষের সাথে কোন ধরনের খারাপ আচরণ করা যাবে না, তাদের শারীরিকভাবে নির্যাতন করা যাবে না। মানুষের সাথে মানবিক আচরণ করতে হবে।’ পুলিশকে জনগণের ভরসার কেন্দ্রস্থলে পরিণত করতে চান বলেও তিনি জানান।

এ সময় তিনি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে লকডাউন বাস্তবায়নে উদ্যোগ নেওয়ার নির্দেশ দেন। আইজিপি বলেন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য এ সময় খোলা জায়গায় অথবা ফুটপাতে বাজার বসাতে হবে। বাজারে একমুখী চলাচলের ব্যবস্থা করতে হবে এবং চায়ের দোকানে আড্ডা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। তা ছাড়া, সরকারি ত্রাণ বিতরণ ও ওমমএসের চাল বিতরণে যেকোনো অনিয়ম রোধে পুলিশ ভূমিকা রাখবে।

বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘সরকারি ত্রাণ বিতরণ এবং ওএমএসের চাল বিতরণে যে কোনো অনিয়ম রোধে ভূমিকা রাখবে পুলিশ। এ জন্য গোয়েন্দা নজরদারি বাড়াতে হবে; বর্তমানে পুলিশের অনেক সক্ষমতা রয়েছে, এ সক্ষমতা কাজে লাগাতে হবে।’

করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে দায়িত্ব পালনের সময় কোন পুলিশ সদস্য অসুস্থ হলে তার চিকিৎসায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়ারও নির্দেশ দিয়েছেন বেনজীর।

বেনজীর আহমেদ বলেন, বলেন, উদ্ভূত পরিস্থিতিতে নতুন নতুন অপরাধ প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এ ছাড়া, কোথাও কোথাও চুরি ডাকাতি বৃদ্ধি পেয়েছে। এসব বন্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
কোন পুলিশ সদস্য অবৈধ আয়ের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকলে তাকে অবশ্যই বেরিয়ে আসতে হবে বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন বেনজীর আহমেদ।