যুক্তরাজ্যে বছরজুড়ে সামাজিক নিষেধাজ্ঞা

u.k

মহামারী আকার ধারণ করা করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত যুক্তরাজ্য। দেশটিতে প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। ফলে যুক্তরাজ্যের জনগণকে করোনার চিকিৎসায় নির্দিষ্ট কোনো ভ্যাকসিন বা ওষুধ না পাওয়া পর্যন্ত ব্রিটেনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সেক্ষেত্রে প্রাথমিকভাবে চলতি বছরজুড়েই এই সামাজিক নিষেধাজ্ঞাগুলো মেনে চলার আহ্বান জানানো হয়েছে।

ইংল্যান্ডের চীফ মেডিকেল অফিসার ক্রিস হোয়াইটি ডাউনিং স্ট্রীট থেকে দেওয়া এক সংবাদ সম্মেলনে এমন তথ্য দিয়েছেন।

অধ্যাপক ক্রিস হুইটির বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, খুব শিগগিরই জীবন হঠাৎ স্বাভাবিক হয়ে উঠবে এমন প্রত্যাশা করা ‘সম্পূর্ণ অবাস্তব’।

এ দিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও (ডব্লিউএইচও) সামাজিক নিষেধাজ্ঞা মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে বলেছে, করোনাভাইরাস ‘দীর্ঘকাল আমাদের সঙ্গে থাকবে’।

এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আরও সতর্ক হতে বলেছেন ডব্লিউএইচও’র প্রধান ডা. টেড্রোস অ্যাধনম ঘেব্রেয়েসাস।

আফ্রিকা, পূর্ব ইউরোপ, মধ্য আমেরিকা এবং দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলোয় কভিড-১৯ এ আক্রান্তের সংখ্যা যে ক্রমশ বাড়ছে, সেই প্রবণতা সম্পর্কে সতর্কও করেছেন তিনি। তিনি বলেছেন, চলমান লকডাউন তুলে দেওয়া হলে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ রূপ নিতে পারে।

এ দিকে যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক লাখ ৮৩ হাজার ২৮৩ জনে। আক্রান্ত হয়েছেন ২৬ লাখ ২৬ হাজার ৯২৯ জন। তবে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৭ লাখ ১০ হাজার ২৮৫ হাজার মানুষ।

যুক্তরাজ্যে এখন পর্যন্ত ১৮ হাজার ১১৫ জন মানুষ মারা গেছেন।