ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে করোনা সন্দেহে এক ব্যক্তিকে ঢাকায় প্রেরণ, বাড়ি লকডাউন

বাড়ির সামনে লাল পতাকা টানানো হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় করোনাভাইরাস আক্রান্ত সন্দেহে একজনকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তার বাড়িতে দেয়া হয়েছে লালপতাকা। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে রূপসদী ইউপি চেয়ারম্যান মহসীন মিয়ার মাধ্যমে সেখানকার দক্ষিণপাড়ার ওই ব্যক্তি সম্পর্কে তথ্য পায় স্থানীয় স্বাস্থ্য ও উপজেলা প্রশাসন।

স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, আখাউড়া উপজেলা স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল বিভাগ এবং জনস্বাস্থ্য ও প্রকৌশল বিভাগে কর্মরত ওই দুই কর্মকর্তাসহ আরেকজন নারী কর্মকর্তা গত ২১ মার্চ আখাউড়া উপজেলার তন্তর বাজারে পরিদর্শনে যান। এর দুইদিন পর থেকে প্রকৌশল বিভাগের দুই কর্মকর্তার শরীরে নানা উপসর্গ দেখা দেয়। এর মধ্যে একজনের অবস্থা একটু বেশি খারাপ হওয়ায় তাকে সতর্ক করে দিয়ে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার কথা বলা হয়। তিনি হোম কোয়ারেন্টাইন না মেনে খাবার অসুবিধা হচ্ছে বলে নিজ গ্রামের বাড়ি বাঞ্চারামপুরের রূপসদীতে চলে যান। আরেকজন ঢাকায় চলে যান। বাঞ্ছারামপুরে গিয়ে ওই ব্যক্তির অবস্থা খারাপ হলে স্থানীয়ভাবে বিষয়টি জানাজানি হয়। এদিকে করোনা ভাইরাসের ভয়ে আতংকিত হয়ে পড়েছে এলাকাবাসী।

তবে তাকে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দেয়া হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার মোহাম্মদ আল মামুন জানান-তেমন কিছু না। তার হাইফিভার ও কিছু কাশি ছিল। সে কারণে আক্রান্ত সন্দেহ করা হচ্ছে। আমরা পরীক্ষার জন্যে নমুনা পাঠাব।

পরিবারের লোকজন জানান,মোঃ জাকির হোসেন আখাউড়া উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী কার্যালয়ে উপসহকারী পদে কর্মরত। ঠাণ্ডা লেগে জ্বর থাকার কারণে তিনি শুক্রবারে নিজ বাড়ি রুপসদীতে চলে আসেন, ওষধ খাওয়ার পর অনেকটাই ভাল হয়েছে।

জাকির হোসেন বলেন,পরীক্ষা ছাড়াই মঙ্গলবার আমার শরীরে করোনা ভাইরাস আছে সন্দেহে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান প্রশাসনকে জানালে প্রশাসনের নির্দেশে বাড়ি লকডাউন ও লাল পতাকা টাঙ্গানো হয়।

এ ব্যাপারে টিএইচও ডাঃ আলমামুন জানান, রোগীর শরীরে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে সন্দেহ করা হয়েছে,সে জন্য তাকে ঢাকা রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রনও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে(আইইডিসিআর) পাঠানো হয়েছে। তবে শারীরিক অবস্থা ভাল।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন সরোয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।