পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই বাংলাদেশে অক্সিজেন রফতানি বন্ধ করল ভারত

Benapole

কোন পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই হঠাৎ করেই বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বাধিক জনবহুল রাষ্ট্র ভারত বাংলাদেশে চিকিৎসার কাজে ব্যবহৃত জরুরি অক্সিজেনের রফতানি বন্ধ করে দিয়েছে। ফলে গত চারদিন বেনাপোল বন্দরে অক্সিজেনবাহী কোন গাড়ি প্রবেশ করেনি।

দেশের চিকিৎসা খাতে অক্সিজেনের চাহিদার বড় জোগানদাতা দেশ ভারত। দেশে চাহিদার বেশিরভাগ অক্সিজেন দীর্ঘদিন ভারত থেকেই আমদানি হয়ে থাকে। প্রতি মাসে শুধু বেনাপোল বন্দর দিয়েই আমদানি করা হয় প্রায় ৩০ হাজার মেট্রিক টন। করোনাকালীন সময়ে অক্সিজেনের ব্যাপক চাহিদা থাকায় আমদানির পরিমাণও বেড়েছে বলে কাস্টমস সূত্রে জানা গেছে। ভারতে অক্সিজেনের সংকট দেখা দেয়ায় কোন পুর্ব ঘোষনা ছাড়াই গত ৪ দিন ভারত থেকে কোন অক্সিজেন বাহি গাড়ি বাংলাদেশে প্রবেশ করেনি।

এদিকে অক্সিজেন নিতে ঢাকা থেকে লিনডে এবং স্পেক্ট্রার খালি গাড়ি দাঁড়িয়ে আছে বন্দরের টিটি শেডে। ভারতীয় রফতানিকারকদের উদ্ধৃতি দিয়ে সিএন্ডএফ এজেন্ট জানিয়েছেন, বাংলাদেশে অক্সিজেন রফতানি বন্ধে তাদের চাপ রয়েছে। দেশে অক্সিজেন সংকটেরর কথা ভেবে বাংলাদেশে অক্সিজেন রফতানি সাময়িক বন্ধ রাখা হয়েছে।

হঠাৎ করে দেশে অক্সিজেন আমদানি বন্ধের কারণে অর্থনৈতিক ক্ষতির পাশাপাশি দেশে চিকিৎসা খাতও বড় ধরনের সংকটের মুখে পড়বে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

বেনাপোল বন্দরে অপেক্ষমান ট্রাক চালকরা জানান, তারা গত ৪ দিন খালি ড্রাম ট্রাক নিয়ে বসে আছেন।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ অ্যাসেসিয়েশনের সহ-সভাপতি কামাল উদ্দীন শিমুল জানান, বাংলাদেশে চিকিৎসা কাজে জড়িত সকল সামগ্রী আসে ভারত থেকে। হঠাৎ বন্ধে বিরূপ প্রভাব পড়বে। তবে আমরা আশা করছি বন্ধুত্বের সূত্র ধরে ভারত সরকার করোনার এ সময়ে অল্প হলেও বাংলাদেশে অক্সিজেন সরবরাহ সচল রাখবে।

বেনাপোল স্থল বন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক আব্দুল জলিল জানান, সর্বশেষ ২১ এপ্রিল বাংলাদেশের দু’জন আমদানিকারকের নামে ৯৩ মেট্রিক টন অক্সিজেন ভারত থেকে বেনাপোল বন্দরে আমদানি হয়। প্রতি মেট্রিক টন অক্সিজেনের আমদানি মূল্য ছিল ১১৬ মার্কিন ডলার। যা বাংলাদেশি টাকায় ৯ হাজার ৯৭৬ টাকা।