বাংলাদেশি কিশোরী চিঠি লিখে বিশ্বজয় করলেন

বাংলাদেশি কিশোরী চিঠি লিখে বিশ্বজয় করলেন
ইন্টারনেট সংগৃহীত ছবি

বিশ্ব ডাক সংস্থার (ইউনিভার্সাল পোস্টাল ইউনিয়ন) আয়োজিত ৫০তম পত্র লিখন প্রতিযোগিতায় স্বর্ণপদক লাভ করেছে কিশোরী নুবায়শা ইসলাম। সিলেটে বেশ আলোচিত হয়েছে সিলেটের মেয়ে নুবায়শার চিঠি লিখে বিশ্বজয়ের বিষয়টি। কোভিড-১৯ ছিল পত্র লেখার বিষয়। নুবায়শার সাফল্যে তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার। সিলেট নগরীর আনন্দ নিকেতন স্কুলের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী ১৪ বছর বয়সী নুবায়শা ইসলাম সুইজারল্যান্ডে গিয়ে পুরস্কার গ্রহণ করবে। বিষয়টি নিশ্চিত করে নুবায়শা গণমাধমকে জানান, এ অর্জন একা আমার নয়, পুরো দেশবাসীর।

জানা গেছে, গত ২৭ আগস্ট আইভরি কোস্টের আবিদজানে অনুষ্ঠিত কংগ্রেসে তার নাম ঘোষণা করেন ইউপিইউ’র মহাপরিচালক বিশার এ হোসেইন। এ প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে নর্থ মেসিডোনিয়ার ব্রুনো ইভানোভস্কি ও তৃতীয় ভিয়েতনামের দাও আনহথু।

জানা যায়, অমলের জন্মের আগেই চিঠিটি লিখেছেন নুবায়শা। চিঠিতে নুবায়শা তার ছোট বোন অমলকে করোনাভাইরাসের মহামারিতে তার সংগ্রামের কথাগুলো উল্লেখ করেছেন। পাশাপাশি ছোটবোনকে কখনো সাহস না হারানোর উপদেশও দিয়েছেন।

চিঠিতে নুবায়শা বলেন, আমার মোটেও ঈর্ষা হচ্ছে না যে তুমি আমার বাবা-মায়ের সব মনোযোগ কেড়ে নিয়েছো। বাবা আমাকে বলেছে আমার একটি ছোট বোন আসছে। তবে আমার হিংসা হচ্ছে এই ভেবে যে, তুমি গর্ভে নিরাপদে আছো। আর আমি আছি মারাত্মক বাইরের পৃথিবীতে। আমিতো তো নিরাপদে নেই।
করোনাভাইরাসের কারণে লকডাউনে বন্দি জীবনের কথাও চিঠিতে তুলে ধরেছে নুবায়শা। ঘরে বসে থাকাকে অবিরাম বন্দিদশা হিসেবে আখ্যা দিয়েছে সে। সিলেট নগরীর আনন্দ নিকেতন স্কুলের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী ১৪ বছর বয়সী নুবায়শা ইসলাম সুইজারল্যান্ডে গিয়ে পুরস্কার গ্রহণ করবে।

তার সাফল্যে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার নিজের ফেসবুক আইডিতে সবাইকে চিঠিটি পড়ার আমন্ত্রণ জানিয়ে লিখেছেন, ‘নুবায়শাকে অভিনন্দন। পাশাপাশি আমরা তার পিতা-মাতা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকেও অভিনন্দন জানাই। জয় বাংলা। ভালো থাকো আমাদের স্বর্ণকিশোরী।’

নুবায়শা বাংলাদেশ ব্যাংক, সিলেট এর যুগ্ম-পরিচালক মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম এবং সিলেট গ্রামার স্কুলের জ্যেষ্ঠ শিক্ষিকা জেসমিন আক্তার দম্পতির একমাত্র মেয়ে।

নুবায়শার লিখা চিঠি

Dear Amal,

I was not jealous of all the attention you’ll get when mom and dad told me I was going to have a little sister. Not even when they bought a crib for you where I spent the first two years of my life, sleeping on a floor mattress. But I did envy you when I realized you had a protective womb shielding you from the deadly outside world and I didn’t. I still find it hard to believe that you’ll be all grown up as you’re reading this all and intelligent just like your sister here! I hope you’re living a blissful life, for l’m not.

You never know when a slight drizzle can turn into a violent storm.

What seemed to be a two weeks’ much-needed mid-spring break came to be an incessant imprisonment at our very own home. The suddenness of how life took a u turn in a matter of weeks makes this even more chilling.

You must know what l’m talking about. You must have books lined up with the struggles of millions others like me. But this is my story; sister to sister, never to be known by anyone else.

Looking back I realize how naïve I was. Pandemic, quarantine, SARS – terms I never heard before. The more everything made sense, the more my heart shrank. I was such blinded by my faith in technology that the thought of a possible outbreak never occurred to me. 193 countries, 7.9 billion people versus a virus.

Can you imagine? ls this Mother Nature’s rage? ls she being vengeful? Are we being punished for wrecking her world? Does that mean we’re being held captives in our very own homes? Or maybe she’s ushering. us to our senses; making us realize our mindless wrongdoings – just how ma would do if I did something wrong. Maybe this is why nature is a SHE; a mother to the mankind.

The virus is deadly and so is losing hope. Numbed by the already wrecked up world I didn’t know what to do. Those death counts – huge numbers – became something we had to hear every single day. The brushes and paints didn’t pique my interests. For the first time I abandoned an unfinished painting.

I didn’t know what to do when mom sank into depression. I just stood there motionless as she kept struggling with sleep and appetite. Why didn’t I do anything? I could have stroked her head and comforted her by saying “Ma don’t worry everything’s going to be fine.” Truth be told, I didn’t know if things were going to be okay. I couldn’t help our mom. What kind of daughter does that make me?

Sometimes I wished all these were a nightmare. That l’d jolt up with the alarm going off and ma telling me l’d be late for school. Once my third-grade English teacher had asked what I feared most. I remember answering thunderstorms and spiders. But now l’d say it’s death as well as the fear of losing someone.

Just when things were being a little easy on us, the unimaginable happened – phuppi passed away. You may not know her Amal, but she was a great person, the best aunt to me – grandma’s only daughter.

A little ill at the morning, gasping for life in the evening, and gone by night – that’s what Covid does to you. Phuppi was rested in our family burial ground. Guilt stabbed in the heart when I went near her. I took the times spent with her for granted. l’d never get to see the smile that bloomed on her face every year as I handed her a saree to wear on Eid.

I fled from her funeral to the Woods nearby as I couldn’t bear seeing her lifeless face. Amal, she was so excited about you; making these nakshikantha baby quilts, one of which I managed to get from her crowded bedroom. The outlines of the floral motifs on it had been embroidered in black. Fate didn’t let her embroider the rest of it. But I’ve to – to keep you warm as you arrive in the freezing January.

Because the world is a wheel that never stops spinning. You’ve to carry on what others have left. You have to fight your way through unfortunate times with trust and patience.

The sun is setting among the foliage, marking the end of the last day of the year and the arrival of a new dawn of a new year. I may have lost Phuppi but I still got the hopes of meeting you soon. your name means “hope” Amal. And that is what’s unique to you. You’ve been fueling my hopes for better times.

This story doesn’t end here. You don’t know what’s coming next in life. But never lose hope Amal -never.

Your sister,

Nubaysha