দৃশ্যমান হলো পদ্মা সেতুর ৪০৫০ মিটার

ছবিঃ সংগৃহীত

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মধ্যেও থেমে নেই পদ্মা সেতুর কাজ। পদ্মা সেতুতে বসেছে ২৭তম স্প্যান। এই স্প্যান বসানোর মধ্য দিয়ে চার কিলোমিটারেরও বেশি দৃশ্যমান হলো পদ্মা সেতু। আজ সেতুর ২৭তম স্প্যানটি জাজিরা, শরীয়তপুর প্রান্তের পিয়ারে বসানো হয়।

আজ শনিবার সকালে পদ্মা সেতুর শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তে ২৭ ও ২৮ নম্বর পিলারে ওপর স্প্যানটি বসানো হয়। এর ফলে পদ্মা সেতুর ৪০৫০ মিটার দৃশ্যমান হলো। পদ্মা সেতুর মোট ৪১টি স্প্যানের মধ্যে আর ১৪টি বাকি রইল এখন।

পদ্মা সেতুর সহকারী প্রকৌশলী হুমায়ুন কবীর জানান, গতকাল শুক্রবার সকালে মুন্সীগঞ্জের মাওয়ার কুমারভোগ কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে ২৭ ও ২৮ নম্বর পিলারের কাছে পদ্মা সেতুর ২৭তম স্প্যানটি নিয়ে রাখা হয়। এরপর আজ শনিবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে স্প্যানটি সফলভাবে বসানো হয়েছে।

পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান আব্দুল কাদের জানান, মার্চ মাসে বিকেলের দিকে নদীর আবহাওয়া খারাপ থাকে। তাই প্রতিটি স্প্যান বসানোর জন্য দুই দিন করে সময় রাখা হয়েছে। একদিন স্প্যান পিলারের কাছে নেওয়া হবে, পরের দিন তা বসানো হবে।

তিনি জানান, পদ্মা সেতুর স্প্যান ও পিলার নির্মাণের কাজ শেষ দিকে। পদ্মা সেতুতে মোট ৪১টি স্প্যান বসানো হবে, ২৭তম স্প্যান বসানো হয়েছে। ডকইয়ার্ডে আরও দুটি স্প্যান রয়েছে। ৪২টি পিলারের মধ্যে ৪১টি পিলার নির্মাণ শেষ, এখন সর্বশেষ পিলার নির্মাণের কাজ চলছে। আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে তা শেষ হবে। বাবি ১ টি পিয়ারের (পিয়ার-২৬) এর কাজ খুব শীঘ্রই শেষ হবে বলে জানিয়েছে সেতু কর্তৃপক্ষ।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে শুরু হয় পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ। মূল সেতু নির্মাণের কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না রেলওয়ে মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রুপ কোম্পানি (এমবিইসি)। আর নদী শাসনের কাজ করছে অপর চীনা প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন।