২০২২ সালে অবসরে যাচ্ছে মাইক্রোসফট ব্রাউজার ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার

ফাইল ছবি

প্রায় ২৫ বছর সেবা দেয়ার পর মাইক্রোসফট ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারকে অবসরে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মাইক্রোসফট এজে মনোযোগ বৃদ্ধির অংশ হিসেবে ২০২২ সালের ১৫ জুন চিরতরে বন্ধ হয়ে যাবে পুরনো এ সার্চ ইঞ্জিনটি।

ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার বন্ধের বিষয়টি নিয়ে জল্পনা-কল্পনা দীর্ঘদিন ধরেই চলেছে। বিশ্বে মাইক্রোসফট উইন্ডোজ যতটা বিপুল জনপ্রিয়তা লাভ করেছে, ঠিক উল্টোটা ঘটেছে তাদের ব্রাউজারের ক্ষেত্রে। নেট ব্যবহারকারীদের কাছে কার্যত ব্রাত্য হয়ে পড়েছিল ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার। সে কারণে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারের কফিনে শেষ পেরেকটা লাগানোর সিদ্ধান্ত নিতেই হলো মাইক্রোসফটকে।

সংস্থাটি বলছে, ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারের স্থলে জোর দেয়া হবে মাইক্রোসফট এজের ওপর। মাইক্রোসফটের প্রোগ্রাম ম্যানেজার শন লিন্ডারসে জানান, উইন্ডোজ ১০-এ ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারের ভবিষ্যৎ হতে চলেছে মাইক্রোসফট এজ। তিনি বলেন, ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ১১ অ্যাপ্লিকেশনটি বন্ধ করে দেয়া হবে। ২০২২ সালের ১৫ জুনের পর থেকে এ অ্যাপ্লিকেশনের জন্য আর কোনো সাপোর্ট দেয়া হবে না।

ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারের বিকল্প যে মাইক্রোসফট এজ হতে চলেছে, সংস্থার কথাতেই তা স্পষ্ট। বলা হচ্ছে, আইই মোড সমেত মাইক্রোসফট এজ হতে চলেছে বেশির ভাগ ব্যবসার ভবিষ্যৎ। দুই বছর আগে মাইক্রোসফট এজের জন্য আইই মোড প্রযুক্তিকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সংস্থা জানিয়েছে, আপাতত ২০২৯ সাল পর্যন্ত মাইক্রোসফট এজে আইই মোড কার্যকর থাকবে।

দীর্ঘদিন ধরেই উঁকি দিচ্ছিল ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারের বিলুপ্তির সম্ভাবনা। মাইক্রোসফট টিম ওয়েব অ্যাপের জন্য ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার-১১-এর সাপোর্ট প্রত্যাহার করেছে। চলতি বছর মাইক্রোসফট ৩৬৫ পরিষেবা থেকেও ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারকে বাদ দেয়া হবে বলে শোনা যাচ্ছে।

পাশাপাশি আগামী ১৭ আগস্ট থেকে অফিস ৩৬৫, ওয়ান ড্রাইভ, আউটলুকসহ একাধিক অ্যাপ্লিকেশন থেকে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারের ব্যবহার ও পরিষেবা প্রত্যাহার করা হবে।

বলা যেতে পারে পাঁচ বছর ধরে মাইক্রোসফট চাচ্ছিল তাদের গ্রাহকরা ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্যবহার বন্ধ করুক। ২০১৫ সালে চালু হওয়া মাইক্রোসফট এজকে সামনে আনতেই এটা চাচ্ছিল তারা। মূলত তখন থেকেই ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারের বিদায় ঘণ্টা বেজে যায়।

বিল গেটস প্রতিষ্ঠিত প্রযুক্তি জায়ান্টটির দাবি, মাইক্রোসফট এজ কোনো সাধারণ ব্রাউজার নয়। এটি একটি সম্পূর্ণ ‘কমপ্যাটাবিলিটি সলিউশন’ বা সামঞ্জস্যতাপূর্ণ সমাধান, যা আইই মোডের সঙ্গে যুক্ত হয়ে আরো শক্তিশালী হয়ে উঠেছে।

সংবাদ সূত্রঃ দ্য ভার্জ