কোয়ারেন্টাইনে থাকা তাবলীগ ফেরা এক বৃদ্ধের মৃত্যু

ছবিঃ সংগৃহীত

রাজশাহীর বাঘা উপজেলায় কোয়ারেন্টাইনে থাকা তাবলীগ জামাত থেকে ফেরা এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার সকাল ৬টার দিকে উপজেলার উত্তর মিলিকবাঘা গ্রামের মৃত আবুল কাশেমের ছেলে আবুল কালাম আজাদ (৬৫) মারা যান। এরপর দুপুরে তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাঘা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আক্তারুজ্জামান।

মৃত ওই বৃদ্ধের বাড়ি উপজেলার উত্তর মিলিকবাঘা এলাকায়। ৪০ দিনের তাবলিগে (চিল্লা) বের হয়ে সর্বশেষ তিনি কুষ্টিয়ায় ছিলেন। সেখানে জ্বর ও শ্বাসকষ্ট দেখা দেওয়ায় চিল্লা শেষ না করেই গত ৫ এপ্রিল গ্রামে ফিরেন। কিন্তু নিজ বাড়িতে না গিয়ে তিনি মাদরাসার একটি রুমে স্বেচ্ছা কোয়ারেন্টাইনে চলে যান।

ঢাকার কাকরাইল মসজিদ থেকে তাবলীগ জামাতের সাথে ৬ মাস আগে ভারতের চেন্নাই গিয়েছিলেন ওই ব্যক্তি। সেখান থেকে ফিরে তিনি কুষ্টিয়া এলাকায় তাবলীগ জামাত শেষে নিজ বাড়ি ফেরার তিনদিন পর তার মৃত্যু হয়।

তার মৃত্যুর পর ভয়ে লাশের পাশে কেউ যাচ্ছিল না। মৃতের লাশটি ৫ ঘণ্টা ওই মাদরাসার এক কক্ষে পড়ে থাকার পর পরিবারের লোকজন লাশ দাফনের জন্য প্রস্তুতি নেন।

কামিয়া ইসলামী দারুল উলুম মহিলা মাদ্রাসায় পরিচালক ও নিহত আবুল কালাম আজাদের ছেলে বলেন, তার বাবা বেশ কিছুদিন আগে তাবলিগ জামাতের দলের সাথে চিল্লায় কুষ্টিয়া যান। ওই চিল্লা শেষ করে তার আরেক চিল্লায় যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু চিল্লা শেষ না হতেই তিনি অসুস্থ বোধ করায় গত ৫ এপ্রিল ফিরে আসেন। করোনা পরিস্থিতির কারণে তাকে মাদরাসার একটি কক্ষে রাখা হয়েছিল।

তিনি বলেন, বাবার শ্বাসকষ্ট, ডায়াবেটিক ও হাইপেশার আগে থেকে ছিল। নিয়মিত এসবের ওষধ ক্ষেতেন। মঙ্গলবার রাতে তিনি ওষধ ধাওয়ার সময় আমাদের সঙ্গে কথাও বলেছেন। তিনি বলেছেন আমি হয়তো আর বাঁচবো না। সকালেও ওষধ খান এবং কথা বলেন। এর কিছুক্ষণ পর তিনি মারা যান।