মঞ্চায়িত হচ্ছে করোনা নিয়ে প্রথম নাটক ‘অবিনাশীকাল’

corona natok

মহামারী করোনার প্রভাবে অনেক পরিবর্তন এসেছে গোটা বিশ্বে। মানুষকে মানুষ থেকে বিচ্ছিন্ন করার এক ভাইরাসের নাম কোভিড-১৯। আতঙ্কময় ভবিষ্যতে একজন বাবা কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত। আশেপাশে কেউ নেই তার স্বজনরা। তাকিয়ে থাকে দূর থেকে। আমেরিকায় বসবাসরত ঔরসজাত পুত্রকে শেষবারের মতো দেখার ব্যাকুলতা সৃষ্টি হয়।

পুত্র আসতে চায়না কিংবা পারেনা। অন্তিম মুহূর্তে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাছে ছুটে আসে কন্যা, বাবার শেষ নিঃশ্বাস তুলে নেয় নিজের কোলে। মরণের পরে পিতা-পুত্রের দেখা হয়। পুত্রও কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে। পিতা-পুত্রের পারস্পরিক সংলাপের মধ্য দিয়ে বেরিয়ে আসে বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসের বাস্তবতা।

এটি মূলত একটি নাটকের গল্প। নাম ‘অবিনাশীকাল’। করোনাকালের গল্প নিয়ে রচিত এটি। দেশে করোনা নিয়ে প্রথম নাটক হিসেবে আগামী ১৫ নভেম্বর রাজশাহী জেলা শিল্পকলা মিলনায়তে মঞ্চায়িত হতে যাচ্ছে এটি। আর সেই সঙ্গে দীর্ঘ বিরতীর পর রাজশাহীতে খুলছে মঞ্চ নাটকের দুয়ার। এদিন সন্ধ্যায় ৬.১৫ টায় মঞ্চায়িত হবে নাটকটি।

করোনাকালের গল্পনির্ভর এ নাটকটি রচনা করেছেন রুমা মোদক। নির্দেশনা দিয়েছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রহমান রাজু। নির্দেশনা সহকারী তুহিন ইমরুল। অভিনয় করেছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষার্থী দুলাল-শতাব্দী-রাহাত। আলোক প্রক্ষেপণে থাকবেন পার্থপ্রতীম দে ও আবহ পরিচালনায় হাসিব সীপত। নাটকটি অন্তর্বতী গিয়েটারের একটি প্রযোজনা। অন্তর্বর্তী থিয়েটারের মুখপত্র হিসেবে আনত পত্রিকাটি থিয়েটারের কাগজ হিসেবে ইতোমধ্যে গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করেছে।

এ বিষয়ে নাটকটির নির্দেশক রহমান রাজু বলেন , নাটকটি মূলত সময়ের গল্প। সময়ের গল্প সময়ে বলাটাই এ আয়োজনের উদ্দেশ্য। রাজশাহীর নাটকের দুয়ারও খুলে যাক এর মাধ্যমে। যদি সেকেন্ড ওয়েভ আসে তখনও যেন মানুষ থাকে মানবিক। এমন প্রত্যাশায় মিনিমাম আয়োজনে গল্পটিকে বার্তারূপে পৌঁছানই এ প্রযোজনার লক্ষ্য।