‘আমার মৃত বাবার সম্মানে হলেও বয়কট খেলা বন্ধ করুন’

কিংবদন্তি নায়করাজ রাজ্জাক নেই, যিনি একাই যুদ্ধবিধ্বস্ত একটি দেশের সিনেমাকে নিজ কাঁধে বহন করে নিয়ে এসেছেন কয়েক যুগ। তার এই শুন্যতার দিনে তাকে স্মরণ করছে তার কাছের মানুষেরা। দীর্ঘদিনের ভালোবাসা আর প্রিয় কাজের জায়গা এফডিসিতে নায়করাজ রাজ্জাক স্মরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে চলচ্চিত্র পরিবার। আর এইদিনে চাপা ক্ষোভ যেনো কান্না হয়ে ঝরে পড়লো কিংবদন্তি চিত্রনায়ক নায়করাজের বড় ছেলে বাপ্পারাজের কণ্ঠে!

২১ আগস্ট সবাইকে কাঁদিয়ে চলে গেলেন চিত্রনায়করাজ রাজ্জাক। তাকে স্মরণ করে এফডিসিতে শনিবার (২৬ আগস্ট) শোকসভা ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিবার। এমন পবিত্র দিনেও বাবার শূন্যতা সয়ে যাওয়ার পাশাপাশি বর্তমান সংকটাপন্ন চলচ্চিত্র নিয়ে চাপা ক্ষোভও দেখা গেলো চিত্রনায়ক বাপ্পারাজের মধ্যে। বাবার স্মরণ সভায় এসে তাই নিজের ভেতর চাপা ক্ষোভের কথাও বললেন।

বর্তমান চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রিতে চলছে সংকটের পর সংকট। বয়কট, নিষিদ্ধের একটি অভয়ারণ্য হয়ে ওঠেছে চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রি। আর এই বয়ক, নিষিদ্ধের খেলা থামাতে কড়জোড়ে মিনতি করলেন সদ্য প্রয়াত নায়করাজের বড় ছেলে ও চিত্রনায়ক বাপ্পারাজ।
মৃত বাবার উছিলায় বা তাকে সম্মান জানিয়ে হলেও চলচ্চিত্রে ‘নিষিদ্ধ নিষিদ্ধ খেলা’ বন্ধের অনুরোধ করেন বাপ্পারাজ।

এফডিসিতে আয়োজিত এই স্মরণসভায় এ প্রসঙ্গে বাপ্পারাজ বলেন, আজকেও শুনলান সমিতি ষোলজনকে ব্যান করে দিয়েছে। খুব সুন্দর কথা। আজকে এখানে সবাই আপনারা আছেন, সিনিয়ররা আছেন। আমি সবার কাছে হাত জোড় করে বলবো, বিশেষ করে এখানে গুলজার ভাই আছেন, খোকন ভাই আছেন। সবাইকে বলছি, আমার বাবা চলে গেছেন অন্তত তার উছিলায়, তার সম্মানে আজকে থেকে এই ‘ব্যান’ খেলাটা বন্ধ করে দিন। আমরা আমাদের লোকদের বুকে টেনে নেয়ার অভ্যাসটা গড়ে তুলি। আমাদের যদি যুদ্ধ করতে হয় তাহলে আমাদের সমিতির বাইরের সাথে, নিজেদের মধ্যে নয়।

এটাই এফডিসিতে শেষ আসা মন্তব্য করে ক্ষোভ থেকে চিত্রনায়ক বাপ্পারাজ আরো বলেন, হয়তো এটাই আমার শেষ আসা। আমি ফিল্মে আর কোনোদিন আসবো না। কিন্তু আমি যদি শুনি সবার বয়কট, ব্যান এগুলো তুলে নেয়া হয়েছে তাহলে তৃপ্তি পাবো। হ্যাঁ, বাপ্পারাজের মতো একজনের এই ফিল্মে না আসলে কারো কিছু আসে যাবে না। বাট এটা আমার একটা প্রতিবাদ, আমাকে ব্যান করে দেন কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু আমার আর ভাইদের যারা ব্যান হয়েছেন, যারা কাজ করতে চায় তাদের পক্ষে এটা রাজ্জাক সাহেবের ছেলে হিসেবে তার পরিবারের হয়ে এটা একটা প্রতিবাদ।

তার আগে একটি দাবী নিয়ে আসার কথা জানিয়ে নিজের বক্তব্যে বাপ্পারাজ বলেন, আমি এখানে একটা দাবী নিয়ে এসেছি। আমাদের ইন্ডাস্ট্রির অবস্থা খুব খারাপ। পরশু বাবাকে দাফন করে জাস্ট পেছনে তাকিয়ে দেখি শাকিব তার পেছনে জায়েদ ছিলো। আমার প্রথম কথা ছিলো, তোমরা দুইজন গলাগলি করো। কোনো ক্লেশের মধ্যে যাবা না। আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতে অনেক বাজে লোক ঢুকে গেছে, যারা আমাদের যুদ্ধে নামিয়ে দিয়ে তালি বাজাচ্ছে আর নিজেদের ফায়দা লুটছে। আমরা আমাদের ইন্ডাস্ট্রিকে আবার ফেরৎ পেতে চাই। আমাদের ইন্ডাস্ট্রি এখন ফিল্মের লোকের হাতে নাই, বাইরের লোকের হাতে চলে গেছে। এখানে এখন নাটকের শ্যুটিং হয়, বিজ্ঞাপনের শ্যুটিং হয়। বাট আমরা ফিল্মের লোকেরা শ্যুটিং করতে পারি না।

বাংলাদেশ সময়: ১৫২৫ ঘণ্টা, ২৬ আগস্ট ২০১৭

লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/এসপি