করোনা: শপিংমল-গণপরিবহনও খোলা থাকবে আরো ২ দিন

Shopping mall-public transport

বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসে বিদ্যমান লকডাউন তথা বিধি-নিষেধের মধ্যে (১২ এপ্রিল) ও মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) দেশের দোকানপাট ও শপিংমল আট ঘণ্টা খোলা রাখা এবং সিটি এলাকায় সীমিত পরিসরে গণপরিবহন চালু রাখার নির্দেশনা দিয়েছে বর্তমান সরকার।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ রোববার (১১ এপ্রিল) ‘করোনা ভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯ এর বিস্তার রোধকল্পে শর্তসাপেক্ষে সার্বিক কার্যাবলী/চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ বর্ধিতকরণ’ বিষয়ে নির্দেশনা জারি করেছে।

এতে বলা হয়, করোনা ভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯ এর বিস্তার রোধকল্পে শর্তসাপেক্ষে সার্বিক কার্যাবলী/চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ৪ ও ৮ এপ্রিলের নিষেধাজ্ঞা ১৪ এপ্রিল ভোর ৬টা পর্যন্ত বাড়ানো হলো।

এর আগে ১১ দফা নির্দেশনা দিয়ে গত ৪ এপ্রিল প্রজ্ঞাপন জারি করেছিল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। পরে দাবির মুখে ৮ এপ্রিল সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত দোকানপাট ও শপিংমল এবং সিটি এলাকায় সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত গণপরিবহন চালুর অনুমতি দেওয়া হয়।

৮ এপ্রিলের আদেশে বলা হয়, ৯ থেকে ১৩ এপ্রিল সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত কঠোর স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন সাপেক্ষে দোকানপাট ও শপিংমল খোলা রাখা যাবে। তবে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন না করা হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এছাড়া, কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম যথারীতি চলমান থাকবে বলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নির্দেশনায় জানানো হয়েছে।

এসব বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সরকারের সিনিয়র সচিব/সচিবদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

করোনা সংক্রমণ রোধে গত ৫ এপ্রিল থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সার্বিক চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করে। এই সময়ে জরুরি প্রয়োজনে সীমিত পরিসরে অফিস, গণপরিবহনসহ সব ধরনের যান চলাচল, দোকানপাট-শপিংমল বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় এবং সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও বন্ধ থাকবে বলে জানানো হয়। তবে নিত্যপণ্যের দোকান ও জরুরি সেবার যানবাহন চলাচলের সিদ্ধান্ত রাখা হয়।

কিন্তু অফিস খোলা রেখে গণপরিবহন বন্ধে সাধারণ মানুষের ভোগান্তির পর ৭ এপ্রিল থেকে গণপরিবহন চালু করা হয়। তবে বিদ্যমান লকডাউন ১৪ এপ্রিল থেকে আরও কঠোর করে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

এ নিয়ে রোববার (১১ এপ্রিল) বিকেলে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামের সভাপতিত্বে একটি সভা চলছে। সভায় সেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ জানায়। তবে এবার অফিস-আদালত ও গণপরিবহন একেবারে বন্ধ করে দেওয়া হবে। তবে চালু থাকবে শিল্প-কারখানা।

জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দাকার আনোয়ারুল ইসলাম বিকেল ৫টার দিকে বাংলানিউজকে বলেন, আমরা মিটিংয়ে আছি।

সবশেষ ১১ এপ্রিল দেশে করোনা সংক্রমণে মারা যায় ৭৮ জন এবং নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৫ হাজার ৮১৯ জন।