ক্লাব বিশ্বকাপের ফাইনালে রাতে মাঠে নামছে বায়ার্ন-টাইগ্রেস

FC Bayern Munich

আরও একটি অর্জনের দ্বারপ্রান্তে দাঁড়িয়ে জার্মান ক্লাব বায়ার্ন মিউনিখ। ক্লাব বিশ্বকাপের ফাইনালে বাভারিয়ানদের প্রতিপক্ষ মেক্সিকোর ক্লাব টাইগ্রেস। দ্বিতীয়বারের মত ক্লাব বিশ্বকাপের স্বপ্নীল ট্রফি জয়ের হাতছানি বায়ার্নের সামনে। কাফু, জাভিদের মত বিশ্বকাপজয়ী সাবেক ফুটবলাররাও এগিয়ে রাখছেন জার্মান ক্লাবটিকে। অপরদিকে, প্রথমবারের মত ফাইনালে উঠে ইতিহাস গড়া টাইগ্রেসের লক্ষ্য অঘটন। কাতারের এডুকেশন স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে আজ রাত ১২টায়।

কাতারে আরও একটি স্বপ্ন পূরণের মিশনে এসেছে বায়ার্ন মিউনিখ। বৈরি আবহাওয়ার কারণে নির্ধারিত সময়ের অনেক পরে কাতারে পৌঁছায় বায়ার্নকে বহনকারী বিমানটি। কোন অনুশীলন না করেই সেমিফাইনালে আল আহলির মুখোমুখি হয়েছিলো তারা। কিন্তু ভাগ্য ভালো, ভ্রমণ ক্লান্তি, তীব্র গরমে বিপর্যস্ত বায়ার্নকে আরো কোন বিপদে পড়তে দেননি রবার্ট লেওয়ানডস্কি। ফাইনালেও বায়ার্নকেই এগিয়ে রাখছেন কাফু, জাভির মত সাবেক কিংবদন্তিরা।

ব্রাজিলের বিশ্বকাপজয়ী সাবেক ফুটবলার কাফু বলেন, চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ী দলটি সব সময়ই ক্লাব বিশ্বকাপে ভালো করে থাকে। আমার মনে হয় ফাইনালটা বায়ার্নই জিতবে। ওরা বেশ অভিজ্ঞ। স্পেনের বিশ্বকাপজয়ী সাবেক ফুটবলার জাভি বলেন, টাইগ্রেসের হারানোর কিছু নেই। তাই ওরা ভাল খেলতে চাইবে। তবে, ম্যাচে বায়ার্নই ফেবারিট।

সব কষ্টই হয়ে যাবে দূর। যদি আসে শিরোপা। সে লক্ষ্যই প্রস্তুত হচ্ছে বায়ার্ন মিউনিখ। কোচ হ্যান্সি ফ্লিকের অধীনে ষষ্ঠ শিরোপা জয়ের দ্বারপ্রান্তে বাভারিয়ানরা। এদিকে, ইনজুরিতে পড়ায় ফাইনালে খেলতে পারবেন না লিও গ্রতজেকা, নিয়ানজো, জাভি মার্টিনেজ। ২০২০ সালের কনকাকাফ জয়ে সরাসরি কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট পেয়েছিলো টাইগ্রেস। ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপের গেল কয়েকটি আসরে আধিপত্য ছিলো উরোপের ক্লাবগুলোর। কিন্তু, কনকাকাফ অঞ্চল থেকে এই প্রথম কোন ক্লাব ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠলো। ইতিহাসের অংশ হতে পেরে গর্বিত টাইগ্রেস।

এবার সে যাত্রায় অঘটন ঘটিয়ে প্রথমবারের মত শিরোপা জিততে চায় এ দলটি। এই প্রথম কোন প্রতিযোগিতায় বায়ার্নের মুখোমুখি হবে টাইগ্রেস। তারপরও ভয়কে জয় করেই ঘরে ফিরতে চায় মেক্সিকোর জায়ান্টরা। করোনা আক্রান্ত হওয়ায় খেলতে পারবেন না নিকোলাস লোপেজ।