বাড়ি প্রযুক্তি এবার হাঁটু প্রতিস্থাপনে জাদুকরি জেল উদ্ভাবন

এবার হাঁটু প্রতিস্থাপনে জাদুকরি জেল উদ্ভাবন

jel

হাঁটু অস্থি সন্ধি (Joint) ঊরু এর সাথে পায়ের সংযোগ করে।এটি দুটি পৃথক সন্ধির সমন্বয়ে গঠিত একটি ফিমারের সাথে টিবিয়ার এবং অন্যটি ফিমারের সাথে প্যাটেলার। মানবদেহে এটিই সবচেয়ে বড় অস্থি সন্ধি। হাঁটুতে হাড়ের মধ্যে পাতলা ও পিচ্ছিল তরুণাস্থি জাদুকরি এক জিনিস। বহু বছর ধরে মানুষের ওজন নেওয়ার মতো শক্তি যেমন রাখে, তেমনি অস্থিসন্ধির মধ্যবর্তী স্থানে নরম কুশন হিসেবে যথেষ্ট কোমল।

পরীক্ষাগারে এমন কোমল ও মজবুত তরুণাস্থি তৈরি করা কঠিন। তবে যুক্তরাষ্ট্রের ডিউক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেরা দাবি করেছেন, তাঁরা পরীক্ষামূলকভাবে একধরনের জেল বা আঠা তৈরি করেছেন, যা তরুণাস্থির মতো মজবুত ও টেকসই হতে পারে। গুড নিউজ নেটওয়ার্কের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

গবেষকেরা বলেছেন, তাঁদের তৈরি জেলে ৬০ শতাংশ পানি ব্যবহার করা হলেও একটি একক কোয়ার্টার আকারের ডিস্কটি ১০০ পাউন্ডের ওজন বহন করতে পারে।

এটি পানি শোষণকারী পলিমারের উপাদান দিয়ে তৈরি করা প্রথম হাইড্রোজেল, যা মানুষের তরুণাস্থির মতো ভারী ওজন নিতে সক্ষম। এটি সময়ের সঙ্গে নষ্ট হয়ে যায় না।

ডিউক বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়নবিদ বেন উইলি ও কেন গাল বলেন, তাঁদের গবেষণা একদিন মানুষের তরুণাস্থির বিকল্প হতে পারবে। বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিবছর ছয় লাখ মানুষ হাঁটু প্রতিষ্ঠানের সুযোগ খোঁজেন।

গবেষকেরা বলছেন, তাঁরা ইতিমধ্যে এই জেলনির্ভর কৃত্রিম তরুণাস্থি তৈরি করেছেন। এটি তরুণাস্থি প্রতিস্থাপনে কাজে লাগবে। হাঁটুর হাড়ের প্রান্তের রাবারের মতো মসৃণ টিস্যু বা কোষ পরস্পরের বিরুদ্ধে চলাচল করতে সক্ষম করে তোলে এবং প্রতি পদক্ষেপেই বিশাল শক্তি শোষণ করতে পারে এ অস্থি। আমাদের শরীরের ওজনের দুই থেকে তিন গুণ পর্যন্ত শক্তি শোষণ করতে পারে।