প্রতারণার মামলায় আটক হয়ে জামিন পেলেন দেবাশীষ

Debashish Biswas

চলচ্চিত্র নির্মাতা দেবাশীষ বিশ্বাসকে প্রতারণার অভিযোগে করা মামলায় প্রথমে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছিলেন আদালত। পরবর্তীতে টাকা ফেরত দেয়ার শর্তে বাদীর আইনজীবীর জিম্মায় তার জামিন মঞ্জুর করা হয়।

আজ বুধবার ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান নূর এই আদেশ দেন। আগামীকাল বৃহস্পতিবার অভিযোগে উল্লেখিত টাকা ফেরত দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। প্রতিশ্রুতির ফলে বিচারক তার জামিন মঞ্জুর করেন।

দেবাশীষ বিশ্বাস আজ আদালতে আত্মসমর্পণ করে তার বিরুদ্ধে হওয়া প্রতারণা মামলা থেকে জামিনের আবেদন করেছিলেন। এসময় ঢাকার অতিরিক্ত মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান নূর তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর কিছুক্ষণ পর আইনজীবী খন্দকার মুহিবুল হাসান আপেলের মাধ্যমে চুক্তি অনুযায়ী নেয়া টাকা ফেরত দেয়ার প্রতিশ্রুতিতে পুনরায় জামিন আবেদন করেন দেবাশীষ। সেই শর্তে তার জামিন মঞ্জুর করেন আদালত।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা গেছে, ২০১৯ সালের ৩০ জুলাই পিএনটিভি ইউটিউব চ্যানেলের মালিক লিটন সরকার ইমন নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে একটি বাণিজ্যিক চুক্তি করেন দেবাশীষ বিশ্বাস। চুক্তি অনুযায়ী দেবাশীষের মা গায়েত্রী বিশ্বাস প্রযোজিত চারটি বাংলা চলচ্চিত্র মায়ের মর্যাদা, শুভ বিবাহ, অপেক্ষা এবং অজান্তে ইউটিউব চ্যানেলে প্রচার করতে ৬০ বছরের জন্য ১ লাখ ৪০ হাজার টাকায় কিনে নেয় পিএনটিভি ইউটিউব চ্যানেল।

তিনি ছবিগুলো ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করলে অন্য একটি ইউটিউব চ্যানেল কর্তৃপক্ষ তার চ্যানেল বন্ধ করে দেন। পরে খোঁজ নিয়ে বাদী জানতে পারেন ২০১৭ সালে এ চারটি চলচ্চিত্র ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করার আগেই আসামিরা অন্য কারও কাছে বিক্রি করেছিলেন। যার ফলে ওই ইউটিউব চ্যানেল কর্তৃপক্ষ কপিরাইট ইস্যুতে ছবিগুলো আপলোড করার পর লিটন সরকার ইমনের চ্যানেল বন্ধ করে দেয়।

ওই ঘটনায় ২০১৯ সালের ৮ সেপ্টেম্বর ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে লিটন সরকার ইমন বাদী হয়ে দেবাশীষ বিশ্বাসের নামে প্রতারণার মামলা করেন।